বিএনপির হরতাল জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমর্থন

ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে বিএনপি। বিএনপির হরতাল সমর্থন দিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। শনিবার বিএনপির হরতাল আহবানে পর রাতে তাতে সমর্থন দেয় ঐক্যফ্রন্ট।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের দপ্তর প্রধান জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহবায়ক ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন, জেএসডির সভাপতি আসম আবদুর রব, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং বিকল্পধারা বাংলাদেশের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নুরুল আমিন বেপারী হরতালে সমর্থন দিয়েছেন।

এর আগে সন্ধ্যায় ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে হরতালের ডাক দেয় বিএনপি। উল্লেখিত দিন ভোর ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ঢাকা শহরে এ হরতাল কর্মসূচির ঘোষণা দেয় তারা।

 

রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। ঢাকাবাসীকে শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল পালনের আহ্বান জানান তিনি।

এদিকে জানা গেছে-

দেশের রাজনীতি দিনকে দিন দুর্বোধ্য হয়ে উঠছে আমার৷ আজকের কথাই ধরুন৷ সিটি নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগে বিএনপি আজ রোববার সকাল সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছিল৷ কিন্তু কেন?

যাদের ডাকে ভোটাররা কেন্দ্রে যান না, গেলেও কারো উঁকি বা চোখ রাঙানিতে ভোট না দিয়ে ফিরে আসেন অথবা অন্যে ভোট দিয়ে দিয়েছে বলে সামাজিক মাধ্যমে বিচার দেন-তাদের ডাকে মানুষ কাজ কর্ম করে ঘরে বসে থাকবেন; সত্যিই এমনটা আশা করেছিলেন তারা?

কেমন হরতাল হয়েছে জানতে চাইলে ঢাকা থেকে একজন স্বজন বললেন, সকালে নয় মিনিটে ফার্মগেট থেকে গুলশান পৌঁছে গেছেন৷ আরেকজনের কথা শুনলাম যিনি অনেকক্ষণ জ্যামে বসে থেকেছেন৷ মানে ভয়ে বা শঙ্কায় অনেকে বের হননি সকালে আবার বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সব স্বাভাবিকভাবে হয়ে গেছে৷ শুধু অনেক বাচ্চা আজ স্কুলে যায়নি, অনেক সাবধানী চাকরিজীবী আজ পায়ে হেঁটেছেন৷ বাজার সওদা করতে গিয়ে বা এয়ারপোর্ট ট্রেন স্টেশনেও কিছু দুর্ভোগ হয়েছে৷ সরকার বা নতুন দুই মেয়রকে গালি দেওয়ার পাশাপাশি নাগরিকেরা আজকে হয়তো বিএনপিকে নিয়েও হাসাহাসি বা গালাগাল করেছেন৷

যারা এই হরতালের ডাক দিয়েছিলেন সেই সব নেতা সমর্থকদের পল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে সরে যেতে ৩০ মিনিটের আলটিমেটাম দিয়েছিল পুলিশ, তারা সরে গেছেন তিন মিনিটের মধ্যে৷ বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, এই সরণ দুপুরের খাওয়া ও নামাজের জন্য৷ দুই মেয়র প্রার্থীর একজন ইশরাক হোসেন কিছুক্ষণের জন্য, পরে আসেন তাবিথ আউয়ালও৷ ও হ্যা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসেছিলেন৷ খবরের কাগজ বলছে দুই মিনিটের জন্য!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *